বিএনপিকে নির্বাচনে আনতে সরকার দৌড়াচ্ছে বিদেশিদের কাছে

Please Share

বিএনপিকে নির্বাচনে আনতে বর্তমান সরকার বিদেশিদের কাছে ছুটে বেড়াচ্ছে। এরইমধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের কাছে দৌড় শুরু করেছে। নিজেরা ক্ষমতায় টিকে থাকতে বিদেশিদের কাছে ধর্ণা দিচ্ছে বলেও মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার (০৭ এপ্রিল) মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নির্দলীয় সরকারের অধীনে জবাবদিহিমূলক নির্বাচন হতে হবে। তবেই বিএনপি অংশ নেবে। আওয়ামী লীগের এসব অপকর্মকে সমর্থন দেবে না তার দল।’

জোর করে ক্ষমতায় টিকে থাকা বর্তমান সরকারের জনগণের কাছে দায়বদ্ধতা নেই। স্বাস্থ্য ব্যবস্থা পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছে বলেও জানান বিএনপি মহাসচিব।

তিনি বলেন, ‘সরকারের লক্ষ্য থাকে দুর্নীতি আর টাকা কামানো। টেস্ট, টিকা সবক্ষেত্রেই দুর্নীতি ও লুটপাটের কারণে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ধ্বংস হয়ে গেছে। সরকারের মদতপুষ্টদের লাভবান করতে দুর্নীতি করছে সরকার।’

তিনি বলেন, ‘সরকারি হাসপাতালের ভয়াবহ অবস্থা। সেদিকে নজর নেই সরকারের। তাদের নজর শুধু মেগা প্রজেক্টে, যেখানে লুট করা যায়।’ এতে মেগা অর্থ পকেটে আসে বলেও জানান মির্জা ফখরুল।

বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করে বলেন, ‘জনগণের কাছে সরকারের কোনো জবাবদিহিতা নেই। সরকার জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করছে।’

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান বলেন, ‘জনগণের স্বাস্থ্য, জীবন, নিরপত্তা জলাঞ্জলি দিয়ে অবৈধভাবে বর্তমান সরকার দেশ চালাচ্ছে। দেশের মানুষকে রক্ষায় ঐক্যবদ্ধ হয়ে বর্তমান সরকারকে হটিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।’

এসময় বিএনপি ক্ষমতায় গেলে বায়ু ও শব্দ দূষণসহ সকল দূষণের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আফগানিস্তানের চাইতেও বাংলাদেশের স্বাস্থ্যে ব্যয় বেশি। জনগণের স্বাস্থ্যব্যয় রাষ্ট্রকে বহন করতে হবে। বায়ু ও শব্দ দূষণসহ সকল দূষণের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে স্বাস্থ্য ভাল থাকবে।’

এসময় মেগা প্রজেক্টের ব্যয়ের একটি অংশ সাধারণ মানুষের স্বাস্থের পেছনে ব্যবহার করার দাবিও জানান আমির খসরু মাহমুদ।

দলের অপর স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘রাষ্ট্র মেরামতের জন্য নির্বাচন পরবর্তী জাতীয় সরকার গঠন করতে হবে। ক্ষমতায় গেলে তড়িঘড়ি করে ব্যবস্থা না নিয়ে সকল খাতের সমস্যা সমাধানের লক্ষে এখন থেকেই সরকার গঠনের প্রস্তুতি নিতে হবে। অপরিকল্পিত অবস্থায় দায়িত্ব গ্রহণের পর ব্যর্থতার দায় নেওয়া ঠিক হবে না।